আর্কাইভ

বান্দরবানে সেনাবাহিনী ও সেটলারদের আয়োজনে আন্দোলনের নাটক

by | Nov 17, 2020 | বিশেষ প্রতিবেদন, সাম্প্রতিক পার্বত্য চট্টগ্রাম

বিশেষ প্রতিবেদনঃ

চিম্বুক পাহাড় এলাকায় স্থানীয় ম্রোদের ভিটেছাড়া করে  সেনাবাহিনী ও সিকদার গ্রুপের পাঁচতারা হোটেল নির্মানের বিরুদ্ধে  দেশ-বিদেশের সচেতন মানুষ যখন প্রতিবাদে উত্তাল তখনই আজ বান্দরবান সদরের প্রেস ক্লাবের সামনে সেনাবিহিনী-সেটলার-দালালদের পরিচালনায় এক প্রহসন মঞ্চস্থ হচ্ছে। ম্রোদের  ভূমি রক্ষার আন্দোলনকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে এই রাজনৈতিক নাটকের মঞ্চায়ন করেছে সেনাবাহিনী আর সেটলার গং।

ছবিতে সেটলারদের সংগঠন পার্বত্য চট্টগ্রাম  নাগরিক ঐক্য পরিষদের নেতৃবৃন্দ সহ বান্দরবান  আওয়ামীলীগের বহিস্কৃত নেতা কাজী মুজিবর রহমানকে দেখা যাচ্ছে। ছবিতে গুটিকয়েক যে আদিবাসী দেখা যাচ্ছে তাঁরা কেউই চিম্বুক পাহাড় এলাকার কেউ নয়। আর্মিরা গতকাল তাঁদের বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে আলীকদম থেকে জড়ো করেছে।

চলমান প্রেক্ষাপটে আর্মির উদ্যোগে সেটলার এবং ম্রো দালালদের এই কাউন্টার-পলিটিক্স আসলে জল ঘোলা করার প্রয়াস ছাড়া আর কিছু নয়। নিজেদের ইমেজ পূনরুদ্ধার করা, উন্নয়নের নামে দখলবাজি জায়েজ করা, ঘোলা জলে নিজের রাজনৈতিক এবং মুনাফা আয়ের উদ্দেশ্য হাসিল করতে চাইছে সেনাবাহিনী।

তাদের এই হীন অপচেষ্টায় সহযোগিতা করছে কতিপয় আদিবাসী নেতা সহ ম্রোদেরই কিছু দালাল। বান্দরবান সদরের তংকাবতি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পূর্নচন্দ্র ম্রো, মাংসার ম্রো, খাংলাই ম্রো, রাংলাই ম্রো  এবং জেলা পরিষদের সদস্য সিয়ং ম্রো সহ কতিপয় দালাল নিজ জাতির সাথে প্রতারণা করে সেনাবাহিনী ও সেটলারদের যোগসাজসে মিলিত হয়েছে।

উল্লেখ্য যে গতকাল আলীকদমে ম্রো সহ সাধারন আদিবাসী ছাত্র-জনতা আর্মির ভূমি দখলের প্রতিবাদে সমাবেশ করতে চাইলে সেনাবাহিনী সেখানে সরাসরি বাধা দেয়। সেনাবাহিনী তাতেই ক্ষান্ত হয়নি, গতকাল থেকে তারা আলীকদম বাজারে লিফলেট বিলি করে প্রোপাগান্ডা ছড়িয়ে জনমানসকে বিভ্রান্ত করতে চাইছে।

সেনাবাহিনীর এই পলিটিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের কৌশল নতুন কিছু নয়। কাউন্টার ইনসারজেন্সির অংশ হিসাবে অপারেশন উত্তরণের বিভিন্ন কর্মকান্ডের মধ্য দিয়ে তারা নিজেদের মত রাজনৈতিক মেরুকরণ তৈরি করেছে। নিজের স্বার্থ হাসিল করতে সমগ্র পার্বত্য চট্টগ্রামে তারা পেটোয়া বাহিনী আর লেজুর তৈরি করেছে।

পাহাড়িরা যুগে যুগে সেনাবাহিনীর নৃশংসতা সহ উন্নয়ন আগ্রাসনের বিরুদ্ধে লড়াই করে আসছে। ভূমি রক্ষায় ম্রো সহ সকল আদিবাসীর সংগ্রাম জোরদার করার পাশাপাশি জনগনকে দালালি, লেজুরবৃত্তি ও সেনাবাহিনীর অপরাজনীতির বিরুদ্ধে সচেতন করার কাজ আমাদের অব্যাহত রাখতে হবে। সেইসাথে সেনাবাহিনীর সার্বভৌমত্ব রক্ষার নামে মানবাধিকার লংঘন ও মুনাফাখোরির বিরুদ্ধে দেশপ্রেমিক জনগনকে সোচ্চার হতে হবে।

 

©jummovoice

 

পপুলার পোস্ট

Related Post

পার্বত্য চট্টগ্রামে সেনাশাসনঃ উপনিবেশবাদ নাকি সার্বভৌমত্ব রক্ষা। দ্বিতীয় পর্ব

পার্বত্য চট্টগ্রামে সেনাশাসনঃ উপনিবেশবাদ নাকি সার্বভৌমত্ব রক্ষা। দ্বিতীয় পর্ব

Ananya Azad March 4, 2014 তাদের গঠনতন্ত্র গুলোতে সমস্যা হচ্ছে, সেখানে বাঙলাদেশিদের নিরাপত্তার কথা বলা নেই। বলা আছে, বাঙালি জাতীয়তাবাদের নিরাপত্তা...

পর্যটনের আড়ালে সাজেকের কান্না : দুর্ভোগে জনতা

পর্যটনের আড়ালে সাজেকের কান্না : দুর্ভোগে জনতা

সংযুক্ত পেইন্টিংঃ শিল্পী তুফান রুচ সাজেক একটি ইউনিয়নের নাম যা বাংলাদেশের সর্ববৃহৎ ইউনিয়ন; যেটি দেশের বৃহত্তম জেলা রাঙামাটি এবং বাঘাইছড়ি উপজেলার...

পাহাড়ে নারীবাদী দর্শনের সাম্প্রতিক সংকট ও উত্তরণ ভাবনা

পাহাড়ে নারীবাদী দর্শনের সাম্প্রতিক সংকট ও উত্তরণ ভাবনা

সংযুক্ত পেইন্টিইং এর শিল্পী- চানুমং মারমা লেখক- লেখকঃ ধীমান ওয়াংঝা    এদেশের নারীবাদী দর্শন বা নারীর প্রতি পুরুষের সহিংসতাকে থিওরাইজ বা তত্ত্বায়ন...

0 Comments

Submit a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *